আবারও ছাত্রকে জিম্মি করে চাঁদা নিল ছাত্রলীগের ৪ নেতা

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ সোহরাওয়ার্দী হলের শিক্ষার্থীকে জিম্মি করে শিবির আখ্যা দিয়ে পরিবারের কাছ থেকে ২০ হাজার টাকা চাঁদা আদায়ের ঘটনা তিনমাস আগের। এবার এক শিক্ষার্থীকে মাদক ব্যবসায়ী ও ছাত্রদল কর্মী আখ্যা দিয়ে দশ হাজার টাকা চাঁদাবাজির অভিযোগ উঠেছে শাখা ছাত্রলীগের সেই নেতা শাফিউর শাফিসহ ছাত্রলীগের তিন নেতার বিরুদ্ধে।

গত সোমবার বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ সোহরাওয়ার্দী হলে এ ঘটনা ঘটে বলে দাবি করেন ভুক্তভোগী ইমরান হোসেন। বৃহস্পতিবার বিকেলে বিষয়টি চাওর হয়।

ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীর ভাষ্য, সোমবার সন্ধ্যায় আবির, জীম ও সফি ইমরানকে বৃত্তের সঙ্গে দেখা করতে ডেকে নিয়ে আসে। এরপর তাকে মাদক ব্যবসায়ী ও ছাত্রদল কর্মী আখ্যা দিয়ে বিশ হাজার টাকা দাবি করে বৃত্ত। টাকা না দিলে তাকে মারধর ও পুলিশে দেয়া হবে বলে হুমকি দেয়।

পরে সেখান থেকে ইমরান চলে আসার পর সফি, আবির ও জীম বৃত্তকে টাকা দেয়ার জন্য বারবার চাপ দেয়। একপর্যায়ে সে দুই হাজার টাকা বিকাশ করে পাঠায় এবং বাকি টাকা দিতে পারবে না বলে জানালে বৃত্ত তাকে মারধর করেন। পরে ইমরান তার কয়েকজন বন্ধুর কাছ থেকে ধার নিয়ে দশ হাজার টাকা বৃত্তের হাতে দেন।

তবে অভিযুক্তরা এ অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। তাদের দাবি-ইমরানের সঙ্গে তার এক বন্ধুর ঝামেলা হয়েছিল। সেই ঝামেলা মিমাংসা করার জন্য ইমরানকে ডেকে কথা বলা হয়েছে কিন্তু মারধর ও চাঁদাবাজির কোনো ঘটনা ঘটেনি।

এর আগে গত বছরের নভেম্বরে শাফিউর শাফির বিরুদ্ধে এক শিক্ষার্থীকে আটকে রেখে চাঁদা আদায়ের অভিযোগ প্রমাণিত হয়। ওই সময় বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল আহমেদ রুনুর হস্তক্ষেপে টাকা ফিরে পায় ওই শিক্ষার্থী।

আবারও একই ঘটনার জন্ম দেয়ার বিষয়ে রাবি ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল আহমেদ রুনু বলেন, বিষয়টি আমি শুনেছি। রাতে আমরা ওই ছেলেকে সঙ্গে নিয়ে বসে বিষয়টি সমাধানের চেষ্টা করব।

print

LEAVE A REPLY