শনিবারের মধ্যে ডাকসু নির্বাচন বাতিল দাবি ৫ জোটের

সোমবার (১১ মার্চ) অনুষ্ঠিত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) নির্বাচন আগামী শনিবারের (১৬ মার্চ) মধ্যে বাতিলের দাবি জানিয়েছে ওই নির্বাচনে অংশ নেওয়া পাঁচটি প্যানেল। পাশাপাশি পুনঃতফসিল ঘোষণার মাধ্যমে নতুন করে নির্বাচন দেওয়ার দাবি জানিয়েছে তারা।

বুধবার (১৩ মার্চ) দুপুর সোয়া ১২টার দিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) রাজু ভাস্কর্যে প্যানেলগুলোর পক্ষ থেকে এই ঘোষণা দেন বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ প্যানেলের সহকারী সাধারণ সম্পাদক (এজিএস) পদে প্রতিদ্বন্দ্বীতাকারী ফারুক হোসেন।

তিনি বলেন, আগামী শনিবারের মধ্যে ডাকসু নির্বাচনকে বাতিল করতে হবে এবং তিন দিনের মধ্যে ডাকসু নির্বাচনের পুনঃতফসিল ঘোষণা করতে হবে। নির্বাচনের সঙ্গে যুক্ত সবাইকে বাদ দিয়ে সৎ ও নিরপেক্ষ শিক্ষকদের নির্বাচনের দায়িত্ব দিতে হবে। দাবি না মানলে তারা রোববার (১৭ মার্চ) থেকে ক্যাম্পাসে কঠোর কর্মসূচি দেওয়ার হুঁশিয়ারি দেন।

পরে ক্যাম্পাসে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করেন পাঁচ প্যানেলের প্রার্থীসহ তাদের সমর্থকরা। মিছিলে উপস্থিত ছিলেন লিটন নন্দী, উম্মে হাবিবা বেনজীর, অরণি সেমন্তি খানসহ শতাধিক শিক্ষার্থী। বিক্ষোভ মিছিলটি ঢাবি উপাচার্য কার্যালয়ের সামনে গিয়ে অবস্থান নেয়। সেখান থেকে উপাচার্যের কাছে স্মারকলিপি দেওয়া হবে।

সোমবার অনুষ্ঠিত ডাকসু নির্বাচনে ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ থেকে নির্বাচিত দুই প্রার্থীর শপথ নেওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে কোটা সংস্কার আন্দোলনের যুগ্ম আহ্বায়ক ফারুক হোসেন বলেন, ‘এ অবস্থায় তারা শপথ নিতে পারে না।’ যদিও মঙ্গলবার রাত ১১টায় নুরুল হক নুর সাংবাদিকদের বলেছিলেন, তিনি শপথ নেবেন এবং সবার সঙ্গে মাঠে থেকে পুনঃনির্বাচনের দাবি জানাবেন।

এর আগে, ফের নির্বাচনের দাবিতে ডাকসু’র নবনির্বাচিত ভিপি নুরুল হক নুরের সংগঠন বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদসহ পাঁচটি প্যানেল বুধবার উপচার্য কার্যালয়ে অবস্থান নেবে বলে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় জানান প্যানেলের নেতারা।

সারাবাংলা

print

LEAVE A REPLY