এফডিসির সাড়ে ৩ কোটি টাকা লুট করেছিলেন পীযূষ

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন করপোরেশনের (বিএফডিসি) মালামাল কেনার নামে দুর্নীতির অভিযোগে প্রতিষ্ঠানটির সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক অভিনেতা পীযূষ বন্দ্যোপাধ্যায় এবং মালয়েশিয়ার এক নাগরিকসহ চারজনের বিরুদ্ধে মামলা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। ২০১৫ সালের ৭ অক্টোবর দুদকের উপপরিচালক হামিদুল হাসান তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল থানায় এ মামলা করেন।

এফডিসির আধুনিকায়নের জন্য যন্ত্রপাতি কেনার নামে সরকারের ৩ কোটি ৪৬ লাখ ৫৮ হাজার ৫২০ টাকা লুটপাটের অভিযোগ আনা হয়েছে মামলায়।
পীযূষ বন্দ্যোপাধ্যায় ছাড়াও অন্য আসামিরা হলেন মালয়েশিয়ার নাগরিক জন নোয়েল, যন্ত্রপাতি সরবরাহকারী স্থানীয় প্রতিনিধি খন্দকার শহীদুল ও প্রকল্প পরিচালক শফিকুল ইসলাম।

অভিযোগে বলা হয়েছিল,  ক্রয়-প্রক্রিয়ায় পীযূষ বন্দ্যোপাধ্যায়সহ এফডিসির সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা পেশাগত দায়দায়িত্ব পালনে অবহেলা করেছেন। প্রাক-জাহাজীকরণ পর্যায়ে প্রযোজ্য বিধিবিধান অনুসরণের পরিবর্তে মনগড়া বিশ্লেষণের ভিত্তিতে যুক্তরাষ্ট্রের পরিবর্তে চীনের তৈরি সস্তা মালামাল জাহাজীকরণের অনুমতি দিয়েছেন। মালামাল গ্রহণ কমিটির সুপারিশ আছে বলে মিথ্যা তথ্য দিয়েছেন।

পীযুষ বন্দোপাধ্যায়ের ‘সম্প্রীতি বাংলাদেশ’ নামক সংগঠনের পক্ষ থেকে রবিবার বাংলাদেশের সকল প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়াতে একটি বিজ্ঞাপন প্রচার করা হয়েছে। এই বিজ্ঞাপনে জঙ্গী সনাক্তকরণের যে লক্ষণগুলো লেখা হয়েছে, সেগুলোর অধিকাংশই মুসলমানদের ধর্মীয় অবশ্য পালনীয় রীতি নীতি। এই বিজ্ঞাপন প্রকাশ করায় ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়েছেন তিনি। সমালোচনাকারীরা বলছেন চার বছর আগে তার নাম করা দুদকের মামলা থেকে রেহাই পেতে তিনি সরকারকে খুশি করতে এসব করছেন।

অনলাইন অ্যাক্টিভিস্ট আমান আবদুহু তার ফেসবুক স্ট্যাটাসে বিষয়টি তুলে ধরেছেন। তিনি লিখেছেন-

‘দুর্নীতি দমন কমিশন বাংলাদেশে সাধারণত মামলা করে বিরোধী দল দমনের জন্য। ক্ষমতাসীনদের মিত্রদের ক্ষেত্রে দুদক আকাশের তারা গুনে। সেই দুদক পর্যন্ত ২০১৫ সালের অক্টোবর মাসে পীযূষ বন্দোপধ্যায় বাবুর বিরুদ্ধে মামলা করেছিলো।

কারণ বাবু পীযুষ বন্দোপধ্যায় এফডিসির ম্যানেজিং ডিরেক্টর হিসেবে আধুনিকায়ন ও ডিজিটালাইজেশন করতে গিয়ে বিদেশী যন্ত্রপাতি আনার নাম করে মাত্র সাড়ে তিন কোটি টাকা খেলে দিয়েছিলেন। এই টাকার অংক বাংলাদেশে কিছুই না। ৩,৫০,০০,০০০ টাকা মাত্র।

এখন পদ্মভূষণ আনিসুর নেতৃত্বে সম্প্রীতির বাংলাদেশে জঙ্গীবাদ দমনের জন্য পীযূষ বাবুর ব্যস্ততা বেড়ে যাওয়ার কারণ জানতে হলে তিন বছর আগে দায়ের করা দুদকের সেই মামলার অগ্রগতি সম্পর্কে আপনাকে একটু খোঁজখবর করতে হবে আর কি।

চেতনার সেবা করলে লাভের শেষ নাই। শুধু লাভই লাভ। দেশ আমাদের মা, দেশ আমাদের জননী। এই মা দিবসে আসুন আবেগ থরথরে কম্পিত গলায় গান গাই, ওলটপুলট করে দে মা লুটে পুটে খাই।’

print

LEAVE A REPLY