বিয়ে করার জন্য ঋণ দেবে ব্যাংক!

বিয়ে করবেন কিন্তু হাতে নেই তেমন কোন টাকা পয়সা, কেউ কোন সাহায্যও করছেনা। ভাবছেন টাকার অভাবে না বিয়েটাই পিছিয়ে দিতে হয়। এমন পরিস্থিতির মধ্যে যারা আছেন তাদের দুশ্চিন্তা করার কোন কারন নেই। কেননা তাদেই এমন সমস্যা সমাধানের জন্য এগিয়ে এসেছে দেশের বেশ কিছু  ব্যাংক। বিয়ে-সংক্রান্ত সকল প্রয়োজন মিটাতে দেশের বেশ কয়েকটি বেসরকারি ব্যাংক এরই মধ্যে চালু করেছে ‘বিয়ে ঋণ’।

বিয়ের জন্যও ঋণ! কথাটি শুনতে আজব মনে হলেও ঘটনা কিন্তু সত্যি। তাহলে এবার জেনে নিন কারা দিচ্ছে এ ঋণ।

আইএফআইসি ব্যাংক: এই ব্যাংক গ্রাহকভেদে সর্বোচ্চ তিন লাখ টাকা পর্যন্ত ‘বিয়ের ঋণ’ দিয়ে থাকে। এ ঋণের মেয়াদ সর্বনিম্ন এক থেকে সর্বোচ্চ তিন বছর। বার্ষিক সুদের হার সাড়ে ১৬ শতাংশ। এ ক্ষেত্রে যদি কোনো গ্রাহক তিন বছর মেয়াদের জন্য এক লাখ টাকা ঋণ নেন, তাহলে ওই গ্রাহককে প্রতি মাসে ঋণের কিস্তি বাবদ পরিশোধ করতে হবে তিন হাজার ৫৪২ টাকা।

ট্রাস্ট ব্যাংক: ব্যক্তিগত ঋণের আওতায় বিয়েসহ আরো বেশ কিছু প্রয়োজনে ঋণ-সুবিধা দেয় ব্যাংকটি। তবে ‘বিয়ের ঋণ’ নামে সরাসরি কোনো ঋণ পণ্য নেই। গ্রাহকের প্রয়োজনভেদে সর্বনিম্ন ৫০ হাজার থেকে সর্বোচ্চ ১০ লাখ টাকার ঋণ দেয়া হয়। এক থেকে পাঁচ বছর মেয়াদি এ ঋণের দুই ধরনের সুদের হার রয়েছে। চাকরিজীবীদের বেতনের বিপরীতে যে ঋণ-সুবিধা দেয়া হয়, তার বার্ষিক সুদের হার সাড়ে ১৪ শতাংশ। আর ব্যবসায়ীসহ অন্যদের বেলায় এ ধরনের ঋণের বার্ষিক সুদের হার সাড়ে ১৬ শতাংশ।

প্রাইম ব্যাংক: বেসরকারি খাতের প্রাইম ব্যাংক বলছে, সরকারি, আধা সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত, ব্যাংক, আর্থিক প্রতিষ্ঠান, বেসরকারি সংস্থা, বিদেশি সংস্থা, ক্ষুদ্র ও মাঝারি প্রতিষ্ঠানের চাকরিজীবী, ব্যবসায়ী, বাড়ির মালিক—সবার জন্য ‘বিয়ের ঋণের’ বন্দোবস্ত রয়েছে। পেশাভেদে ১৫ হাজার থেকে ৩৫ হাজার টাকা মাসিক আয় বা বেতনের যে কেউ এ ঋণ নিতে পারবেন। গ্রাহকভেদে সর্বনিম্ন ৫০ হাজার থেকে তিন লাখ টাকা পর্যন্ত বিয়ের ঋণ দিচ্ছে প্রাইম ব্যাংক। মাসিক কিস্তিতে পরিশোধযোগ্য এ ঋণের মেয়াদ পাঁচ বছর। ঋণের বার্ষিক সুদের হার ১২ থেকে ১৫ শতাংশ।

ব্যাংক এশিয়া: বিয়ের জন্য সরাসরি কোনো ঋণ-সুবিধা না থাকলেও ব্যক্তিগত ঋণের আওতায় ঋণ নিয়ে তা বিয়ের খরচ হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন। ব্যাংকটি সর্বনিম্ন ৫০ হাজার থেকে সর্বোচ্চ ১০ লাখ টাকা পর্যন্ত ঋণ দিচ্ছে। ১৫ হাজার টাকা মাসিক আয়ের বিভিন্ন শ্রেণির পেশাজীবীদের এ ঋণ দেয়া হয়। ঋণের বার্ষিক সুদের হার ১২ থেকে ১৫ শতাংশ পর্যন্ত।

ইস্টার্ন ব্যাংক: এই ব্যাংক সরাসরি বিয়ের জন্য ঋণ দেয় না। এর ব্যক্তিগত ঋণের এনি পারপাসের আওতায় যে ঋণ দেওয়া হয়, তাতে আবেদন ফরম পূরণের সময় বিয়ের উদ্দেশ্যে ঋণ নেওয়া হচ্ছে, তা উল্লেখ করতে হবে। ঋণ আবেদনকারীর বয়স ২২ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে হতে হবে। আবেদনকারী চাকুরীজীবী হলে তাঁর আয় ১৫ হাজার এবং ব্যবসায়ী হলে তাঁর আয় ২৫ হাজার টাকা হতে হবে। সর্বোচ্চ ১০ লাখ টাকা পর্যন্ত এ ঋণ দেওয়া হয়ে থাকে যার সুদের হার ১৫%। ঋণ পরিশোধের মেয়াদ (১-৫)বছর পর্যন্ত।

সিটি ব্যাংক: এই ব্যাংক থেকে বিয়ের উদ্দেশ্যে ঋণ নেওয়া যাবে ‘সিটি সলিউশনের’ মাধ্যমে। সর্বোচ্চ তিন লাখ টাকা পর্যন্ত ঋণ নেওয়া যাবে কোনো গ্যারান্টার ছাড়াই। ৫০ হাজার থেকে ১০ লাখ টাকা পর্যন্ত ঋণ পাওয়া যাবে। ঋণ পরিশোধ করতে হবে ১২ থেকে ৬০ মাসের মধ্যেই। প্রসেসিং ফি ১.৫%। আবেদনকারী যদি চাকুরীজীবী হয় তবে তাঁর মাসিক আয় ১৫ হাজার টাকা, আত্মকর্ম-সংস্থানকারী হলে তাঁর মাসিক আয় ২৫ হাজার টাকা এবং ব্যবসায়ী হলে তাঁর মাসিক আয় ৩০ হাজার টাকা হতে হবে।

print

LEAVE A REPLY