অখণ্ড ভারত প্রকল্পের পক্ষে রয়েছে বাংলাদেশ সরকার: আরএসএস নেতা

ইউরোপী ইউনিয়নের মতো ‘অখণ্ড ভারতের’ পরিকল্পনার পক্ষে বাংলাদেশ সরকার রয়ছে বলে মনে করছেন ভারতের উগ্র হিন্দুত্ববাদী সংগঠন রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘের (আরএসএস) সিনিয়র নেতা ইন্দ্রেশ কুমার।

তিনি বলেছেন, ২০২৫ সালের পরে পাকিস্তান হবে ভারতের অংশ। তার আশা, ওই সময়ে ‘অখন্ড ভারত’ হবে, যেখানে সীমান্ত হবে ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের মতো।

তার দাবি, দিল্লি এরই মধ্যে নিশ্চিত করেছে যে, এ উদ্যোগের পক্ষে রয়েছে বাংলাদেশ।

‘কাশ্মির-ওয়ে অ্যাহেড’ শীর্ষক এক সমাবেশে শনিবার মুম্বাইয়ে বক্তব্য রাখেন আরএসএসের জাতীয় নির্বাহী সদস্য ইন্দ্রেশ কুমার। এর আয়োজন করে ‘ফোরাম ফর অ্যাওয়ারনেস অব ন্যাশনাল সিকিউরিটি’র মহারাষ্ট্র শাখা।

এর নেতৃত্বে রয়েছেন রাজ্যের সাবেক ডিজিপি প্রবীণ দীক্ষিত। সেখানেই ইন্দ্রেশ কুমার এসব মন্তব্য করেন। খবর ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস।

ইন্দ্রেশ কুমার ওই সমাবেশে বলেন, লিখে নিতে পারেন যে, ৫-৭ বছর পরে, করাচি, লাহোর, রাওয়ালপিন্ডি এবং শিয়ালকোটের যেকোনো স্থানে বাড়ি কেনার সুযোগ পাবেন আপনি। পারবেন এসব স্থানে ব্যবসা করতে।

তিনি বলেন, ১৯৪৭ সালের আগে কোনো পাকিস্তান ছিল না। লোকজন বলে, ১৯৪৫ সালের আগে এটা ছিল হিন্দুস্তানের অংশ। ২০২৫ সালের পরে আবার এটা হিন্দুস্তানের অংশ হবে।

তিনি বলেন, লাহোরে বসবাসের স্বপ্ন আছে আমাদের। মানস সরোবরে যাওয়ার জন্য চীনের কাছ থেকে অনুমতি নেয়ার কোনো প্রয়োজন নেই। আমাদের পছন্দমতো একটি সরকার নিশ্চিত করেছি আমরা ঢাকায়। ইউরোপিয় ইউনিয়নের মতো করে একটি ভারতীয় ইউনিয়ন অব অখন্ড ভারত গড়ে উঠতে পারে।

পাকিস্তানকে কেন চীন সমর্থন দিচ্ছে তাও তিনি বুঝতে পারেন বলে মন্তব্য করেছেন ইন্দ্রেশ কুমার।

তিনি দাবি করেন, আমরা জানতে পেরেছি আন্তর্জাতিকভাবে পাকিস্তানকে গ্রাস করতে চায় চীন। আমরা পাকিস্তানের বিরুদ্ধে অস্ত্র ছাড়াই একটি যুদ্ধে জিতেছি। তাই পাকিস্তানকে সমর্থন দিচ্ছে চীন। দোকলাম থেকে আমরা চীনকে সরিয়ে দিয়েছি। বিশ্ব যেখানে চীনকে অপরাজিত হিসেবে দেখে সেখানে আমরা তাদের পরাজিত করেছি।

উৎসঃ   দেশ রুপান্তর
print

LEAVE A REPLY