‘ভারতের জামাই’ পাকিস্তানি পেসারকে দারুণ অভিনন্দন সানিয়া মির্জার

পাকিস্তানি পেসার হাসান আলি মঙ্গলবার বিয়ে করেছেন ভঅরতীয় তরুণী সামিয়া আরজুকে। বিয়ের কিছু সময় আগে তিনি আগে টুইটারে নিজের ছবি পোস্ট করলেন তিনি। লিখলেন, ‘‘অবিবাহিত হিসেবে শেষ রাত্রি। সামনের দিকে তাকিয়ে।” এই টুইটের জবাবে ভারতের টেনিস সেনশেসন সানিয়া মির্জার টুইটে বেশ সাড়া পড়ে যায়।

মঙ্গলবার দুবাইয়ে ভারতীয় তরুণী ‘এমিরেটস এয়ারলাইন্স’-এর ফ্লাইট ইঞ্জিনিয়ার সামিয়া আরজুর সঙ্গে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন হাসান। তার এহেন টুইটের উত্তরে তাকে অভিনন্দন জানান সানিয়া মির্জা । সেই সঙ্গে একটি বিশেষ অনুরোধও করেছেন তিনি। তিনি লিখেছেন, ‘‘অভিনন্দন হাসান। তোমাদের দু’জনকে সারা জীবনের জন্য ভালোবাসা ও সুখে থাকার কামনা। এবার আমাদের তোমরা ‘নান্দোস’-এর থেকেও ভালো ট্রিট দেবে।” উল্লেখ্য,‘নান্দোস’ একটি দক্ষিণ আফ্রিকান চেন রেস্তোরাঁ।

পাকিস্তানের আর এক তারকা ক্রিকেটার শোয়েব মালিকের সঙ্গে ভারতের টেনিস সুন্দরী সানিয়া মির্জার বিয়ে হয়েছে কয়েক বছর আগে।

বেশ কয়েক সপ্তাহ ধরেই গুঞ্জন শোনা যাচ্ছিল হাসান ও সামিয়ার প্রেমের সম্পর্ক নিয়ে। গত মাসেই অনেকে দাবি করেছিলেন পাকিস্তানি পেসার ভারতীয় তরুণীকে বিয়ে করতে চলেছেন।

গত ৩০ জুলাই হাসান আলি টুইট করে জানিয়ে দিয়েছিলেন, বিয়ের ব্যাপারটা এখনো পাকা হয়নি। এবং তিনি এব্যাপারে দ্রুত ঘোষণা করবেন। কথামতোই পরে তিনি এব্যাপারে বিশদে জানান সকলকে।

পাকিস্তানের গুজরানওয়ালায় এক সংবাদ সম্মে‌লনে হাসান আলি জানিয়ে দেন, ‘‘আমাদের পরিবার বিষয়টিকে চুপিসারেই সেরে ফেলতে চেয়েছিল। কিন্তু যেহেতু বিষয়টি সংবাদমাধ্যমের গোচরে চলে আসে তাই আমি সিদ্ধান্ত নিই একটি ঘোষণা করতে যাতে আমার বিয়ে নিয়ে আর গুঞ্জন না শোনা যায়।” তিনি জানিয়ে দেন, ‘‘আমি কালো ও লাল শেরওয়ানি স্যুট পরব। আর ও ভারতীয় পোশাকে সজ্জিত হবে।”

হাসান জানান, সামিয়ার সঙ্গে এক বছর আগে দুবাইতে আলাপ হয় তাঁর। এরপর ক্রমে বন্ধুত্ব আর সেখান থেকে সম্পর্ক বাঁক নেয় প্রেমের দিকে।

ন’টি টেস্ট ও ৫৩টি একদিনে আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলেছেন ‌হাসান। ২০১৭ সালের চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে পাকিস্তানের জয়ের অন্যতম কাণ্ডারি ছিলেন তিনিই।

তবে এরপর থেকে তার ফর্ম অতটা ভালো নেই। ২৫ বছরের তারকা এবারের বিশ্বকাপেও খেলেছেন। কিন্তু পারফরম্যান্স ভালো ‌না হওয়ায় প্রতিযোগিতার মাঝপথেই দল থেকে বাদ পড়েন।
সূত্র : এনডিটিভি

print

LEAVE A REPLY