মিলনের ‘খুনি’ আটক, বাইক উদ্ধার

মোবাইল অ্যাপের বদলে খ্যাপে যাত্রী বহন করতে গিয়ে প্রাণ হারানো মোহাম্মদ মিলনের সন্দেহভাজন খুনি গ্রেপ্তার হয়েছেন। উদ্ধার হয়েছে ছিনিয়ে নেওয়া মোটর সাইকেলটি।

আলোচিত এই হত্যার এক সপ্তাহের মধ্যেই প্রধান অভিযুক্ত গ্রেপ্তারের মধ্য দিয়ে এই রহস্যের জট খোলার আশা করছে পুলিশ।

গোয়েন্দা পুলিশ জানাচ্ছে, সন্দেহভাজনের নাম নুরুজ্জামান অপু। গত রাতে তাকে ধরা হয়েছে। অবশ্য কোত্থেকে তাকে আটক করা হয়েছে, সেটি জানানো হয়নি। সংবাদ সম্মেলন করেই বিস্তারিত জানানোর কথা বলেছে গোয়েন্দা বিভাগ।

গত ২৫ আগস্ট দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে মালিবাগ ফ্লাইওভারের তৃতীয় তলায় মিলনের গলা কেটে ছিনিয়ে নেয়া হয় মোটর সাইকেল (ঢাকা মেট্রো ল ২৬-৪১২৬) ও মোবাইল ফোন। কাটা গলা নিয়ে মিলন ফ্লাইওভার থেকে কোনো রকমে নিচে নেমে আসার পর তাকে প্রথমে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও পরে নেয়া হয় জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটে। সেখানেই তার মৃত্যু হয়।

মোটর সাইকেলে যাত্রী পরিবহন করতেন মিলন। শুরুতে মোবাইল অ্যাপে যাত্রী বহন করলেও পরে তিনি চুক্তিতে যাত্রী বহন শুরু করেন। এভাবে পরিচয় নিশ্চিত না করে কাউকে বাইকে তোলা যে নিজের জীবনের জন্যও হুমকি হতে পারে, সে ঝুঁকিটি তিনি অগ্রাহ্য করেছিলেন।

ঝুঁকি অগ্রাহ্য করতে গিয়ে মিলন নিজের জীবন হারানোর পাশাপাশি স্ত্রী এবং দুটি সন্তানের জীবনকেও অনিশ্চয়তার মধ্যে ফেলে গেছেন। তিনি পরিবারের সঙ্গে মিরপুর-১ গুদারাঘাট এলাকায় থাকতেন।

মিলনকে হত্যার পর কে তার বাইকটি ভাড়া নিয়েছিলেন, সে বিষয়ে কোনো তথ্যই পাওয়া যাচ্ছিল না। ফ্লাইওভারের তৃতীয় তলায় কোনো ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরাও ছিল না। কবে উড়ালসড়কটিতে উঠা এবং নামার সময় ক্যামেরায় ধারণ করা ফুটেজ সন্দেহভাজনকে আটকে সহায়তা করেছে বলে নিশ্চিত করেছে গোয়েন্দা বিভাগ।

জানতে চাইলে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের অতিরিক্ত উপকমিশনার জুয়েল রানা বলেন, ‘অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। দুপুরে এই ব্যাপারে সংবাদ সম্মেলন করে বিস্তারিত জানানো হবে।’

ঢা টা

print

LEAVE A REPLY