কুমিল্লাকে হারিয়ে শেষ চারের পথে খুলনা

বঙ্গবন্ধু বিপিএলে কুমিল্লা ওয়ারিয়র্সকে ৩৪ রানে হারিয়ে প্লে-অফের পথে এগিয়ে গেছে খুলনা টাইগার্স। এ জয়ে পয়েন্ট টেবিলের তৃতীয় স্থানে অবস্থান করছে খুলনা।

বুধবার মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস হেরে ব্যাট করে নির্ধারিত ২০ ওভারে ২ উইকেটে ১৭৯ রানের বড় সংগ্রহ দাঁড় করায় খুলনা টাইগার্স। ১৮০ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে ১০ বল বাকি থাকতে ১৪৫ রানেই থামে কুমিল্লার ইনিংস।

১৮০ রানের জবাবে ব্যাট করতে নেমে একটা সময় সাব্বির রহমানের ব্যাটে চড়ে জয়ের স্বপ্ন দেখছিল কুমিল্লা। ১৫তম ওভারে ৪ উইকেটে ছিল ১৩০ রান। শেষ ৩১ বলে ৬ উইকেট হাতে রেখে ৫০ রান খুব কঠিন কিছু ছিল না।
কিন্তু ঝড় তোলা সাব্বির মোহাম্মদ আমিরের শিকার হলে একের পর এক উইকেট হারিয়ে ম্যাচ থেকে ছিটকে পড়ে কুমিল্লা। ৩৯ বলে গড়া সাব্বিরের ৬২ রানের ইনিংসটি ছিল ৭ বাউন্ডারি আর ২ ছক্কায় সাজানো।

সাব্বির ফেরার পর ৭ বলের ব্যবধানে ইয়াসির আলিও সাজঘরের পথ ধরেন। ১৫ বলে ১ চার আর ২ ছক্কায় তিনি করেন ২৭ রান। এরপর ডেভিড উইজ (১০), আবু হায়দাররা (০) তেমন কিছু করতে পারেননি।

এর আগে টপ অর্ডারে ব্যর্থতার পরিচয় দেন স্টিয়ান ফন জিল (১৩ বলে ১২), সৌম্য সরকার (১৭ বলে ২২) আর অধিনায়ক ডেভিড মালানও (১)।

খুলনার পক্ষে রবি ফ্রাইলিংক ৪ ওভারে মাত্র ১৬ রান খরচ করে নেন ৫ উইকেট। ২টি করে উইকেট শিকার করেন শহীদুল ইসলাম আর মোহাম্মদ আমির।

টস হেরে ব্যাট করতে নেমে খুলনার দুই ওপেনার নাজমুল হোসেন শান্ত ও মেহেদি হাসান মিরাজ মিলে ৯.১ ওভারে যোগ করেন ৭১ রান। তাদের জুটি ভাঙে শান্তর বিদায়ে। সৌম্য সরকারের বোলিংয়ে সানজামুল ইসলামের হাতে ক্যাচ দেয়ার আগে ২৯ বলে ৪ চার ও ১ ছয়ের মারে ৩৮ রান করেন তিনি। স্বাভাবিক ব্যাটিং করতে ব্যর্থ হওয়া মিরাজ আউট হন ১৩তম ওভারের দ্বিতীয় বলে। মিরাজের ৩৯ বলে ৩৯ রানের ইনিংসের সমাপ্তি ঘটান ডেভিড উইজ।

দুই ওপারের বিদায়ের পর রুশো ও মুশফিকের অবিচ্ছিন্ন তৃতীয় উইকেট জুটিতে ৪৬ বলে ৮৫ রান যোগ হয়। মাত্র ২৮ বলে নিজের ব্যক্তিগত ফিফটি করেন রুশো। ফিফটির পরেও থামেনি রুশোর ব্যাট। খেলেছেন ইনিংসের শেষ পর্যন্ত। অপরাজিত থেকেছেন ৩৬ বলে ৬ চার ও ৪ ছয়ের মারে ৭১ রানের অসাধারণ এক ইনিংস খেলে।

রুশোকে সঙ্গ দিয়ে মুশফিকও খেলেছেন কার্যকরী ইনিংস। খুলনা অধিনায়ক ২ চারের মারে ১৭ বলে করেন ২৪ রান।

print

LEAVE A REPLY