নোয়াখালীতে বিয়ের প্রলোভনে মাদ্রাসা ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ

প্রতীকী ছবি

নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার রামপুর ইউনিয়নে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে মাদ্রাসা ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে মনিরুল ইসলাম তারেক (১৮) নামের এক যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। শনিবার দুপুরে গ্রেফতারকৃত তারেককে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। একইসঙ্গে ওই ছাত্রীর জবানবন্দি রেকর্ড করে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য তাকে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে। অভিযুক্ত তারেক রামপুর ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ডের ওয়াতী ভূঁইয়া বাড়ীর নজরুল ইসলাম প্রকাশ খানের ছেলে।

ধর্ষণের শিকার ছাত্রীর মা বাদী হয়ে গত রাতে মনিরুল ইসলাম তারেক ও তার সহযোগি চরকাঁকড়া ইউনিয়নের আহছান উল্যার ছেলে নাহিদসহ (১৯) অজ্ঞাত ৩/৪জনকে আসামি করে থানায় মামলা করেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, বামনী আছিরিয়া ফাজিল মাদ্রাসার ফাজিল প্রথম বর্ষে অধ্যয়নরত এক ছাত্রীর সঙ্গে তারেকের প্রেমের সম্পর্ক ছিল। ২৩ জানুয়ারি ওই ছাত্রী নানার বাড়ি থেকে নিজের বাড়িতে আসার সময় বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে, জোর করে ফেনীর একটি আবাসিক হোটেলে নিয়ে তাকে একাধিকবার ধর্ষণ করে তারেক।

কোম্পানীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. আরিফুল রহমান জানান, মেয়েটির পরিবারের অভিযোগের ভিত্তিতে মামলার প্রধান আসামি তারেককে গ্রেফতার করা হয়। মামলার অপর আসামিকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। তিনি আরো জানান, তারেককে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। ওই ছাত্রীর জবানবন্দি রেকর্ড করে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য তাকে হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে।

print

LEAVE A REPLY