ঝাল খাবারের পর পানি খেলে দেহে কী হয় ! আপনি জানেন কি ?

news_picture_28560_chilli-paperবাঙালিরা সাধারণত ঝাল খাবার খেতে ভালোবাসেন। খাবারের স্বাদ বাড়াতে তাই অনেকেই লাল মরিচ, কাঁচামরিচ এসব ব্যবহার করেন। তবে প্রায়ই ঝাল খাবারের পর আমরা একটি ভুল কাজ করি আর সেটি হলো, মসলাযুক্ত ঝাল খাবার খাওয়ার পর বেশি ঝাল অনুভূত হলে আমরা অনেকখানি ঠান্ডা পানি পান করে ফেলি।

খাবার খাওয়ার পর বেশি ঝাল লাগলে জিহ্বা জ্বালাপোড়া, নাক-চোখ দিয়ে পানি আসা- এ ধরনের সমস্যা হয়। আর এই লক্ষণগুলো কমাতে আমরা বেশির ভাগ সময় পানিকেই বেছে নিই। তবে গবেষণা বলছে, ঝাল কমানোর জন্য পানি খাওয়ার অভ্যাসটি ঠিক নয়। বোল্ডস্কাই ওয়েবসাইটের স্বাস্থ্য বিভাগে প্রকাশ হয়েছে এ-সংক্রান্ত একটি প্রতিবেদন।

ঝাল খাবারের পর পানি খেলে দেহে কী হয়? আগে বলি, ঝাল খাবার কেন ঝাল হয়? মূলত কেপসেইকিন উপাদান থাকার কারণে এ ধরনের খাবার ঝাল লাগে। ঝাল খাবারের মধ্যে থাকা উপাদানগুলো সরাসরি মস্তিষ্কে ক্রিয়া করে, এতে মুখে ঝালভাব অনুভূত হয়।

তাহলে পানি কী এই ঝাল কমায়? গবেষণায় বলা হয়, রাসায়নিক উপাদান কেপসেইকিন হলো নন পোলার মলিক্যুল (মেরুহীন অণু)। তবে পানির অণুর মেরু আছে। পানি মুখের ঝালভাবকে প্রশমিত করে না। কাজেই ঝাল কমাতে পানি পান করে আসলে কোনো লাভ নেই। পানি বরং ঝালের অনুভূতি মুখের অন্যান্য অংশে ছড়িয়ে দেয়। এই কারণে ঝালের অনুভূতি আরো বেড়ে যায়। এই ঝালভাব আমাদের পিপাসা আরো বাড়িয়ে দেয়।

তাহলে ঝাল থেকে মুক্তির উপায় কী? পানি ছাড়া অন্য কোনো পানীয়, যেসব পানীয়ের অণুর গঠন পানির মতো নয়, সেসব ব্যবহার করে এই ঝাল অনুভূতি কমাতে পারেন, যেমন- দুধ। দুধের আণবিক গঠন পানির মদো মেরুহীন নয়। এটি ক্যাপসেইকিনের ঝাঁঝালো বিষয়টি নষ্ট করে দেয়।

তাই বিশেষজ্ঞরা বলেন, খাবারের পর বেশি ঝাল লাগলে পানি পান না করাই ভালো, কারণ এতে ঝাল অনুভূতি মুখের ভেতর আরো ছড়িয়ে যায়।

print

LEAVE A REPLY