মীর কাসেমের সম্পদ ভাগের লোভে, শাহবাগী সাপগুলোর জিব্বা লকলক করতেছে: মিনা ফারাহ

Mina Farah[ads1]রাজনৈতিক প্রতিপক্ষের ১ম সাড়ি শেষ। এবার ২য় সাড়ির পালা।
সেই লক্ষেই তাদের উত্তরাধিকারীদেরকে গুম করাচ্ছে। এবার ফাসি হবে জামায়াতের অর্থ বিত্তের। হিসাব বহু আগেই করে ফেলেছে। মিডিয়ায় বাড়বার দেখাচ্ছে মিরকাসেমের টাঁকার হিসাব। মাহবুবে আলম, স্বরাষ্ট্র, আইন, …মন্ত্রীসহ মুর্গি কবির আর ডঃ আনোয়ার হোসেনের মত জানোয়ারদের ঘোষণা, মিরকাসেমের সম্পদ জব্দ হবে। জামায়াতের টাকার সোর্স কেটে ফেলা হবে। শুকিয়ে মাড়া হবে।
শাহবাগের উন্মাদ মঞ্চ থেকে সন্ত্রাসীদের ঘোষণা, মিরকাসেমের টাকার ভাগ পাবে মুক্তিযোদ্ধারা। ভাগের লোভে, শাহবাগী সাপগুলোর জিব্বা লকলক করতেছে। সম্পদের ভাগ নিতে প্রায় মারামারির শুরু। যেমন হয়েছিল বিহারী আর হিন্দু সম্পত্তি লুটের সময়। পড়ায় ৫ লক্ষ একর হিন্দু আর বিহারি জমি এবং অফুরান সম্পদ এভাবেই গূম।
আসল কথা ভিন্ন। ২০১৫ সনে মোদী বলেছিল খালেদাকে, জামায়াতের সঙ্গ ত্যগ করতে হবে।
দাঙ্গাবাজ মোদী সবাইকে বুঝিয়েছে, জামায়াত হচ্ছে, বাংলা আইএস। বাংলা আইএস কে গোঁড়ায় কাটতে হবে। পশ্চিমারা এখন মোদীর কথায় চলে।[ads2]
মিরকাসেমের সম্পদ জব্দ করার পরিকল্পনা হাসিনার নয়। ঝড়ের বেগে আজ জেলে ফাসির আদেশ পৌছে দিয়েছে মোদীর হুকুমেই।
মীড়কাশেমের লবির টাকার হিসাব মিডিয়ায় দেখানোর কারণ , সন্ত্রাসের অভিযোগে সম্পদ জব্দে পশ্চিমারা খূশী হবে। ঠিক যেমন ৩২ দাঁত বেড় করে পুলিশের কাজের প্রশংসা করছে বার্ণীকাট ।
পশ্চিমারা খূশী ণা হলে এইসব কাজে হাত দেয়? সম্পদ জব্দ করে হরির লূট হবে। টক শোতে আসা মুর্গী কবিরদের মূখে এখন শুধুই মীড়কাশেমের টাকার হিসাব।
হূম্মাম-আড়মাণ-আজমির … উত্তরাধিকার নির্মূলে গুমই সহজ ।
জামায়াত কী এখনো হরতাল ডেকে ঘরে বসে ফেরেশতার অপেক্ষায় থাকবে?[ads1]

print

LEAVE A REPLY