‘তোমরা আছো, দৃঢ় হও, আমরা এক আমেরিকা’

নির্বাচনী প্রচারণায় মুসলিম ও ল্যাটিনোদের বিরুদ্ধে চরম কুৎসা ও হুমকি প্রদানকারী ডোনাল্ড ট্রাম্প এবার যুক্তরাষ্ট্রের পরবর্তী প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ার পর যুক্তরাষ্ট্রের বহু স্থানে মুসলিম জনগোষ্ঠী ও মসজিদ জাতিবিদ্বেষমূলক হুমকি-ধমকি ও আক্রমণের শিকার হচ্ছে, যা আমেরিকান মুসলিমদের মধ্যে উদ্বেগের সঞ্চার করছে।
এ পরিস্থিতিতে এক শ্বেতশ্মশ্র“শোভিত মুখাবয়বের শ্বেতাঙ্গ বৃদ্ধ একাকী টেক্সাসের আর্ভিং শহরের আর্ভিং ইসলামিক সেন্টারের বাইরে দাঁড়িয়েছেন একটি বড় প্লাকার্ড তুলে ধরে, যাতে বড় বড় হরফে লেখা- ‘ইউ বিলং, স্ট্রে স্ট্রং, বি ব্লেসেড, উই আর ওয়ান আমেরিকা’ (তোমরা এখানে থাকবে, দৃঢ় হয়ে থাকো, তোমরা আশীর্বাদ নাও, আমরা একক আমেরিকা)।
এই ছবি ফেসবুক দিয়ে সোস্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাষ্ট্রের বাইরে ব্যাপকভাবে প্রচারিত হচ্ছে এবং উদ্বিগ্ন মুসলিমদের মনে কিছুটা হলেও স্বস্তির সঞ্চার করছে। যুক্তরাষ্ট্রের অন্যতম প্রভাবশালী দৈনিক ‘ওয়াশিংটন পোস্ট’ এর ওপর সচিত্র প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে (৩০ নভেম্বর), যা কানাডার বৃহত্তম সংবাদপত্র ‘টরন্টো স্টার’ একই দিন পুনঃপ্রকাশ করেছে।
এই মহান শ্বেতাঙ্গ ব্যক্তির পরিচয় প্রকাশ পায়নি। তার মাথায় সাদা ‘কাউবয়’ হ্যাট এবং পোশাকের ধরনে স্পষ্ট, টেক্সাসের রক্ষণশীল বলে পরিচিত শ্বেতাঙ্গ সমাজেরই একজন তিনি। এটা ব্যাপারটিকে আরো কৌতূহলোদ্দীপক করে তুলেছে।
আর্ভিংয়ের ইসলামিক সেন্টারের একজন প্রতিনিধির ‘ওয়াশিংটন পোস্ট’ প্রতিবেদককে বলেন, ওই ব্যক্তি তাদের মসজিদের সামনে কয়েক দিন ধরে মুসলিম সম্প্রদায়ের প্রতি শুভেচ্ছামূলক প্লাকার্ডটি তুলে ধরে দাঁড়িয়েছিলেন।
প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়, নির্বাচনী প্রচারণাকালে ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হলে সব মুসলিমের জন্য যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ সম্পূর্ণ ও চূড়ান্তভাবে বন্ধ করে দেবেন বলে তিনি হুমকি দিচ্ছিলেন। পরে তিনি একটু রদবদল করে বলেন, ‘যেসব দেশে সন্ত্রাসের অস্তিত্ব রয়েছে, সেসব দেশ থেকে কোনো অভিবাসী আসতে দেয়া হবে না।’
যুক্তরাষ্ট্রের বৃহত্তম মুসলিম সংস্থা ‘কাউন্সিল অব আমেরিকান ইসলামিক রিলেশন্স’ রিপোর্ট করেছে, ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ার পর পুরো যুক্তরাষ্ট্রে শতাধিক মুসলিমবিদ্বেষী ঘটনা ঘটে গেছে। ক্যালিফোর্নিয়ায় বহু মসজিদে এবং জর্জিয়ার একটি মসজিদে একাধিক চিঠিতে হুমকি দেয়া হয়েছে, ‘অ্যাডলফ হিটলার ইহুদিদের প্রতি যা করেছেন, ট্রাম্প মুসলিমদের প্রতি তাই করবেন।’
আর্ভিংয়ে মসজিদের বাইরে মুসলিমদের পক্ষে দাঁড়ানো শ্বেতাঙ্গ আমেরিকানের ফটো ‘রেডিট’ ও ‘টুইটার’-এর মাধ্যমে সোস্যাল মিডিয়াতে ব্যাপকভাবে প্রচার পাচ্ছে। ‘টুইটার’-এ একজন লিখেছেন : ‘ছবিটি দেখে চোখে পানি এসেছে। আশা, অন্তর্ভুক্তি ও ন্যায়নীতির এমনই শক্তি।’
আরেকজন লিখেছেন : ‘ছবিটি আবার আমাকে আশান্বিত করেছে, যা সাম্প্রতিককালে আমাদের জন্য হওয়া সম্ভব ছিল না।’ আরেকজন লিখেছেন : ‘এই (শ্বেতাঙ্গ) ব্যক্তি আঁধারের মাঝে একটি মোমবাতির মতো আলো ছড়ালেন। তাকে আশীর্বাদ করি।’
লেখক : মঈনুল আলম, প্রবীণ সাংবাদিক, প্রবাসী
উৎসঃ নয়াদিগন্ত

print

LEAVE A REPLY