অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের প্রয়োজনে সংবিধান পরিবর্তন করতে হবে: মির্জা ফখরুল ইসলাম

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, নির্বাচনের আগে একটা সহায়ক সরকারের প্রয়োজন আছে। বর্তমান সরকারের নিরপেক্ষ নির্বাচনের সাহস নেই। নির্বাচন করতে গেলে তারা সেভাবে সুবিধা করতে পারবে না। ক্ষমতা তাদের হাতে থাকবে না। সে কারণে সংবিধানের নানা কথা বলে তারা বাধা দিচ্ছেন। সংবিধান তো কোনো বাইবেল না, সংবিধান মানুষের তৈরি। শুক্রবার বেলা ১২ টায় ঠাকুরগাঁওয়ে নিজ বাসভবনে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন তিনি।
এসময় তিনি আরো বলেন, অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন দিতে গেলে প্রয়োজনে সংবিধান পরিবর্তন করতে হবে। অতীতের মত আমরা রাজনৈতিকদলগুলো যদি একত্রে আসতে পারি তাহলে সেটি পরিবর্তন করতে সময়ের ব্যাপার মাত্র। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ ২০১৪ সালের মত নির্বাচন করতে পারবে না। তাদের এবার নিরপেক্ষ নির্বাচন ছাড়া কোনো বিকল্প নেই। সরকারে থাকলে শুধু ক্ষমতাকে খর্ব করা হয়, নিবার্চন কমিশনে চাপ সৃষ্টি করা হয়, তাহলে সেই নির্বাচন তো গ্রহন যোগ্য হবে না। এ ছাড়া তাদের যে বৈর্ধতা এখনো নেই, তাই তারা আবার ২০১৪ সালের মত আর একটি নির্বাচন করতে পারবে না।
বিএনপি মহাসচিব আরো বলেন, আমরা সবসময় বলেছি আমরা নির্বাচন করতে চাই। অতীতে রাষ্ট্র প্রধানের দায়িত্ব নিয়েছি নির্বাচনের মধ্য দিয়ে। তাই নির্বাচন করতে গেলে একটি পরিবেশ তৈরি করতে হবে। ঠাকুরগাঁওয়ে সেচ্ছাসেবক লীগ নেতা, যুবলীগের নেতার ছুরিকাঘাতে খুন হওয়ায় তীব্র নিন্দা জানিয়ে সুষ্ঠ বিচারের দাবি জানান মির্জা ফখরুল।এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন, জেলা বিএনপির সভাপতি তৈমুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক পয়গাম আলী, জেলা যুবদলের সভাপতি আবু নুর চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক মাহাবুর হোসেন তুহিন প্রমুখ।

print

LEAVE A REPLY