ধেয়ে আসছে গ্রহাণু ফায়েথন ৩২০০

প্রাগৈতিহাসিক জীব ডাইনোসর বিলুপ্তির পেছনে যেসব কারণ ধারণা করা হয়ে থাকে গ্রহাণুপাত তন্মধ্যে একটি। তেমনই একটি গ্রহাণু ভয়ঙ্কর গতিতে এগিয়ে পৃথিবীর দিকে ধেয়ে আসছে বলে জানিয়েছেন নাসার জ্যোতির্বিদরা।
গ্রহাণুটির নাম ‘ফায়েথন ৩২০০’।
ভারতীয় জ্যোতির্বিজ্ঞানী সন্দীপ চক্রবর্তী জানান, ‘১৬ ডিসেম্বর এই গ্রহাণুটি পৃথিবীর সবচেয়ে কাছে এসে পড়বে। যেভাবে ইতিমধ্যেই প্রত্যাশিত কক্ষপথ থেকে অনেকটা সরে এসেছে গ্রহাণুটি, তাতে আগামী তিন দিনে তা পৃথিবীর পক্ষে কতটা বিপজ্জনক হয়ে উঠতে পারে তা এখনই বলা যাচ্ছে না।
তবে নাসা বলছে ভিন্ন কথা। এ দৈত্যাকার গ্রহাণু পৃথিবীতে কোনোরূপ আঘাত হানবে না বলে তারা আশ্বস্ত করেছেন। নাসার তথ্যানুযায়ী, ফায়েথন ৩২০০ পৃথিবী থেকে প্রায় ১০.৩ মিলিয়ন কিলোমিটার দূর দিয়ে এ সৌরজগত অতিক্রম করবে। এবং ২০৯৩ সালের আগে এটি আর পৃথিবীর কাছে আসবে না।
ফায়েথন ৩২০০ গ্রহাণুটি লম্বায় ৪ কিলোমিটারেরও বেশি। অতীতে এত বড় চেহারার গ্রহাণু পৃথিবীর এত কাছে কখনও আসেনি বলে দাবি করেছেন জ্যোতির্বিদরা।
তাদের তথ্যমতে, এ মুহূর্তে গ্রহাণুটি পৃথিবী থেকে প্রায় ১ কোটি কিলোমিটার দূরে অবস্থান করছে।
গ্রহাণুটি নিয়ে বিশ্বের সব জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা রীতিমতো উদ্বিগ্ন থাকলেও মানুষ উল্কাবৃষ্টি দেখার অপেক্ষায় মুখিয়ে আছে।
বুধবার রাতে পৃথিবীর আকাশে খালি চোখে উল্কাবৃষ্টি দেখা যাবে।বুধবার রাত সাড়ে ৯টা থেকে বৃহস্পতিবার ভোররাত পর্যন্ত আকাশে উজ্জ্বল আলোর ঝরনা দেখা যাবে। এই ঝরনা আগামী তিন দিন ধরে দেখা গেলেও আজ রাতেই তা হবে সবচেয়ে উজ্জ্বল।
print

LEAVE A REPLY