অবৈধ পন্থায় ২০০ মিলিয়ন ডলার আয় করেছে উত্তর কোরিয়া

মিয়ানমারের কাছে ২০০ মিলিয়ন ডলারের অস্ত্র বিক্রি করেছে উত্তর কোরিয়া

২০১৭ সালে উত্তর কোরিয়া জাতিসঙ্ঘের আরোপিত নিষেধাজ্ঞাগুলোকে বুড়ো আঙুল দেখিয়েছে। জাতিসঙ্ঘের আরোপিত নিয়ম-কানুন খর্ব করে অবৈধ পন্থায় ২০০ মিলিয়ন ডলার আয় করে নিয়েছে।উত্তর কোরিয়ার কাছ থেকে ব্যালাস্টিক মিসাইল সিস্টেম গ্রহণ করেছে মিয়ানমার। এ ছাড়াও মিয়ানমারের কাছে অস্ত্রও বিক্রি করেছে নিষিদ্ধ দেশটি।

ইউএস সিকিউরিটি কাউন্সিলের নিষেধাজ্ঞা বিষয়ক কমিটিতে দেয়া রিপোর্টে অবৈধ পণ্য রপ্তানিসহ সিরিয়া ও মিয়ানমারের কাছে অস্ত্র বিক্রির মতো অভিযোগও তোলা হয়েছে। রাশিয়া, চীন, দক্ষিণ কোরিয়া, মালয়েশিয়া এবং ভিয়েতনামের বন্দরে কয়লার চালান গেছে উত্তর কোরিয়া থেকে। এ কাজে ভুয়া কাগজপত্র ব্যবহার করা হয়েছে।
পিয়ংইয়ংয়ের নিউক্লিয়ার এবং ব্যালাস্টিক মিসাইল প্রগ্রামের পেছনে ফান্ড গঠনে এবং কয়লা, লৌহ, সীসা, টেক্সটাইল ও সামুদ্রিক খাবার এবং ক্রুড ও রিফাইন্ড পেট্রোলিয়াম পণ্য রপ্তানি বন্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়। ইতোমধ্যে আন্তর্জাতিক তেল সরবরাহের চেইন, বিদেশি অতিথি, অফশোর কম্পানি রেজিস্ট্রি এবং আন্তর্জাতিক ব্যাংকিং সিস্টেম সংশ্লিষ্ট গ্লোবাল নিয়ম-কানুন লঙ্ঘন করেছে উত্তর কোরিয়া।

উত্তর কোরিয়া এখনও সিরিয়া এবং মিয়ানমারের সঙ্গে ব্যালাস্টিক মিসাইল কোঅপারেশন কর্মসূচি চালু রেখেছে। ২০১২-২০১৭ সালে রমধ্যে উত্তর কোরিয়া থেকে ৪০টিরও বেশি জাহাজে পণ্য পাঠানো হয়েছে সিরিয়ার সায়েন্টিফিক স্টাডিজ অ্যান্ড রিসার্চ সেন্টারে। এসব চালানে দেশটির রাসায়নিক অস্ত্রের পরীক্ষা এগিয়ে গেছে।

রয়টার্স

print

LEAVE A REPLY