খালেদা জিয়ার কথা সম্পূর্ণ অসত্য: আইনমন্ত্রী

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ‘নিম্নআদালত সরকারের কব্জায়’ বলে যে অভিযোগ করেছেন তাকে সম্পূর্ণ অসত্য বলে নাকচ করে দিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক।

তিনি বলেন, খালেদা জিয়া যে কথা বলেছেন, সেটি সম্পূর্ণ অসত্য। আমরা সবাই বাংলাদেশের বিচারালায়ের প্রতি শ্রদ্ধাশীল এবং সেটিই সবার ব্যক্ত করা উচিত।

শনিবার বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির বর্ধিতসভায় খালেদা জিয়া বলেন, সবাই জানে স্বাধীন বিচার বিভাগ, কিন্তু স্বাধীন নয়। তারা সবচেয়ে পরাধীন। তারা কিছু করতে পারে না, তারা শুধু হুকুমের নির্দেশ মানতে বাধ্য হয়। সর্বোচ্চ আদালতও বলছেন- দেশের নিম্নআদালত সরকারের কব্জায়।

বিএনপি নেত্রী আরও বলেন, বিচার কোথায়? যেখানে অপরাধই নেই, সেখানে বিচারটা হবে কীসের? তার পরও তারা গায়ের জোরে বিচার করতে চায়। গায়ের জোরে কথা বলতে চায়।

রোববার রাজধানীর হোটেল লেকশোয়ে বাংলাদেশ এমপ্লয়ার্স ফেডারেশন আয়োজিত এক কর্মশালার উদ্বোধন শেষে এ বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেন, আমি দুঃখিত যে তিনি যে কথা বলেছেন সেটি অসত্য। আমি আগেও বলেছি এখনও বলছি- বিচার হয়েছে আদালতে। সব সাক্ষ্যপ্রমাণ বিশ্লেষণের মাধ্যমে বিজ্ঞ বিচারক তার রায় দেবেন।

এ সময় প্রধান বিচারপতি নিয়োগে জ্যেষ্ঠতার কোনো বাধ্যবাধকতা নেই বলেও মন্তব্য করেন মন্ত্রী। তিনি বলেন, প্রধান বিচারপতি নিয়োগে জ্যেষ্ঠতা লঙ্ঘন করা হয়েছে- এ কথায় আমার ঘোর আপত্তি রয়েছে। আপনারা বাংলাদেশের সংবিধান দেখলে বুঝতে পারবেন। সংবিধানের ৯৫ নম্বর অনুচ্ছেদে পরিষ্কারভাবে লেখা আছে- রাষ্ট্রপতি প্রধান বিচারপতি নিয়োগ দেবেন। সেখানে কোথাও লেখা নেই যে জ্যেষ্ঠতার ভিত্তিতে নিয়োগ হবে। রাষ্ট্রপতি তার বিবেচনায় যে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, আমরা তার সিদ্ধান্তে শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করছি।

শুক্রবার নতুন প্রধান বিচারপতি নিয়োগের কয়েক ঘণ্টার মাথায় দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি ও আপিল বিভাগের জ্যেষ্ঠতম বিচারপতি মো. আবদুল ওয়াহাব মিঞা পদত্যাগ করেন।

এ বিষয়ে আইনমন্ত্রী বলেন, একজন বিচারপতি পদত্যাগ করেছেন, তিনি এটি পারেন। তিনি তার ব্যক্তিগত অভিপ্রায় ব্যক্ত করেছেন। এ বিষয়ে আমার বলার কিছু নেই।

print

LEAVE A REPLY