স্কেলে চাঁদাবাজি বন্ধ না হলে পরিবহন বন্ধের হুশিয়ারি

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে ওজন নিয়ন্ত্রণের নামে স্কেলে চাঁদাবাজির অভিযোগ উঠেছে। আন্তঃজেলা মালামাল পরিবহন সংস্থা ট্রাক ও কাভার্ডভ্যান মালিক সমিতি এ অভিযোগ তুলে বলেছে, স্কেলে চাঁদাবাজি বন্ধ না হলে পণ্য পরিবহন অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ করে দেয়া হবে।

বুধবার চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে সমিতির আহ্বায়ক মো. নুরুল আবছার অভিযোগ করে বলেন, পণ্যবোঝাই ট্রাক ও কাভার্ডভ্যানের ওজন নিয়ন্ত্রণে সীতাকুণ্ড ও দাউদকান্দিতে দুটি স্কেল বসানো রয়েছে। যার মধ্যে সীতাকুণ্ডের স্কেলটিতে চালকদের হয়রানিসহ বেপরোয়া চাঁদাবাজি চলছে।

ট্রান্সপোর্ট মালিকরা এ সমস্যা সমাধানে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ দাবি করেছেন। অন্যথায় কঠোর কর্মসূচিতে যাওয়ার হুশিয়ারি দেন তারা।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন যৌথ সমিতির আহ্বায়ক মো. নুরুল আবছার। যমুনা সেতুর মতো সেনাবাহিনী নিয়ন্ত্রিত স্কেল বসানোর আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ঢাকা-চট্টগ্রম মহাসড়ক ছাড়া অন্য কোথাও এ সর্বনাশা স্কেল পদ্ধতি নেই। এ স্কেলটি দেশের পরিবহন বিভাগ ও জনগণের জন্য কাল হয়ে দাঁড়িয়েছে। চট্টগ্রামের পরিবহন বিভাগকে হয়রানি ও চট্টগ্রাম বন্দরকে ধ্বংসের জন্য এ স্কেল বসানো হয়েছে। স্কেলের কারণে প্রতিদিন মাইলের পর মাইল ম্যারাথন যানজট সৃষ্টি হচ্ছে।

এ নেতা আরও বলেন, যানজটের কারণে একদিকে বন্দরে মালামাল খালাসের ওপর প্রভাব পড়ছে, অন্যদিকে ঘণ্টার পর ঘণ্টা গাড়ি আটকে থাকায় প্রচুর জ্বালানি তেল অপচয় হচ্ছে।

print

LEAVE A REPLY