অন্যায় পথে নির্বাচন অনুষ্ঠান ছাড়া সমর্থকশূন্য আওয়ামী লীগের একাদশ সংসদ নির্বাচনে বিজয়ের অন্য কোনো উপায় নেই

একাদশ সংসদ নির্বাচন আসন্ন। ৩০ ডিসেম্বর এ নির্বাচনের দিন চূড়ান্তভাবে ধার্য করা হয়েছে। এ নির্বাচনের গুরুত্ব অপরিসীম। কারণ দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছিল দেশের দুই প্রধান দলের অন্যতম বিএনপির বয়কটের মধ্যদিয়ে। দেশের দুই প্রধান দলের অন্যতম বিএনপি কর্তৃক বর্জিত হওয়ায় সে নির্বাচন তার সকল গুরুত্ব হারিয়ে ফেলেছিল। বিরোধী দল তো দূরের কথা, শাসক দলের বহু নেতা কর্মীও সে নির্বাচনে ভোট দানের উদ্দেশ্যে ভোট কেন্দ্রে যাওয়ার গরজ অনুভব করেননি। কারণ তারা জানতেন, তারা ভোট দানের উদ্দেশ্য ভোট কেন্দ্রে না গেলেও তাদের ভোট দানের ব্যবস্থা ঠিকই করা হবে দলের পক্ষ থেকে।

বাস্তবে হয়ও সেটাই। বিরোধী দলের ভোট বর্জনের কারণে ভোট কেন্দ্রে বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের অনুপস্থিতির সুযোগে শাসক দলের অল্পসংখ্যক নেতা কর্মী তাদের ইচ্ছামত সরকারী দলের প্রার্থীদের ব্যালটপত্রে সীলম শাসক দলের প্রার্থীদের বিপুল ভোটে বিজয়ী হওয়া নিশ্চিত করতে সক্ষম হন। এর ফলে দশম জাতীয় সংসদে বিএনপির কোন প্রতিনিধি ছিল না। দেশের দুই প্রধান দলের অন্যতম বিএনপির পরিবর্তে দশম জাতীয় সংসদে বিরোধী দলের ভূমিকা পালন করে আওয়ামী নেত্রী শেখ হাসিনার বিশেষ দূত জেনারেল এরশাদের নেতৃত্বাধীন জাতীয় পার্টী। আর সংসদে বিরোধী দলের নেত্রীর ভূমিকা পালন করেন জেনারেল এরশাদের স্ত্রী বেগম রওশন এরশাদ, যিনি জাতীয় সংসদে তাঁর প্রথম ভাষণেই সরকারী দলের সকল কাজে সমর্থন দানের প্রতিশ্রæতি দান করে সংসদে বিরোধী দলের ভূমিকা পালনের ক্ষেত্রে এক কলংকজনক অধ্যায় সংযোজন করেন। দশম জাতীয় সংসদের নির্বাচন বর্জনের কারণে দেশের প্রকৃত বিরোধী দল বিএনপির পক্ষে বিরোধী দলের নিয়মতান্ত্রিক রাজনীতিতে প্রাপ্য সুযোগ সুবিধা পাওয়া অসম্ভব হয়ে দাঁড়ায়। সেসব সুযোগ সুবিধা পাওয়ার আশায় একাদশ সংসদ নির্বাচনে বিএনপির অংশগ্রহণের স্বপক্ষে বিএনপি সমর্থকদের মধ্যে জনমত প্রচল হয়ে উঠতে থাকে। এছাড়া শাসক দল আওয়ামী লীগের নেতৃত্বের একাংশের মধ্যেও একাদশ সংসদ নির্বাচন যাতে বিএনপিসহ সকল দলের অংশগ্রহণে ধন্য হয় তার পক্ষে দলীয় সমর্থকদের মধ্যে জনমত জোরদার হয়ে উঠতে থাকে। আওয়ামী লীগের নেতৃত্বের অনেকেই আশা প্রকাশ করেন, একাদশ সংসদ নির্বাচনকে যে কোন মূল্যে অর্থবহ করার চেষ্টা করা হবে। এসব আশা ও আশ্বাসে বিএনপির অনেকের মধ্যেই এ বিশ্বাস জোরদার হয়ে উঠতে থাকে যে, একাদশ সংসদ নির্বাচন দশম সংসদ নির্বাচনের মত একতরফা ও প্রশ্নবিদ্ধ হবে না।

কিন্তু বিএনপি নেতৃত্বের একাংশের মধ্যকার এ আশা শেষ পর্যন্ত সফল হয়নি। আওয়ামী লীগ নেতৃত্বের পক্ষে প্রশ্নবিদ্ধ নির্বাচনের মোহ বর্জন করে দেশকে একটি অবাধ নিরপেক্ষ নির্বাচন উপহার দেয়া সম্ভবপর হচ্ছে না বলেই মনে হচ্ছে তাদের বাস্তব ক্রিয়াকর্মে। ইতোমধ্যেই আওয়ামী লীগ নেতৃত্বের এ ব্যর্থতার লক্ষণ প্রধান বিরোধী দল বিএনপি তো বটেই, দেশবাসীর কাছেও সুস্পষ্ট হয়ে উঠতে শুরু করেছে। প্রধান বিরোধী দলীয় নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার দাখিল করা যে তিনটি আসনের মনোনয়ন পত্রই বাতিল ঘোষণা করেছে সরকারের নিয়োগকৃত নির্বাচন কমিশন।

আওয়ামী লীগের নেতা জনাব ওবায়দুল কাদের যদিও দাবী করেছেন, বিএনপির কোন নেতা নেত্রীর মনোনয়নপত্র বাতিলে সরকারের কোন হাত ছিল না, এটা ছিল সম্পূর্ণ নির্বাচন কমিশনের এখতিয়ারে, তাঁর এই বক্তব্য কেউ বিশ্বাস করছে না। কারণ বেগম খালেদা জিয়া এবং অন্যান্য বিএনপি প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র বাতিল ঘোষণা ইসি (নির্বাচন কমিশন) করলেও খোদ নির্বাচন কমিশনই গঠিত হয়েছিল আওয়ামী সরকার কর্তৃক। আর আওয়ামী লীগের তো প্রশ্নবিদ্ধ নির্বাচন করার সুদীর্ঘ ঐতিহ্য রয়েছে।

সংবাদপত্র পাঠকদের স্মরণ থাকার কথা, বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম সরকারের আমলেই সকল রাজনৈতিক দলকে নিষিদ্ধ ঘোষণা একটি মাত্র সরকারী দল রেখে দেশে একদলীয় বাকশালী শাসন ব্যবস্থা কায়েম করা হয়েছিল। পরবর্তীকালে কিছু দু:খজনক ঘটনার মধ্যদিয়ে এক দলীয় শাসন ব্যবস্থার স্থানে বহু দলীয় গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা পুন:প্রতিষ্ঠিত হলেও এক পর্যায়ে একটি নির্বাচিত সরকারকে সামরিক ক্যুর মাধ্যমে উৎখাত করে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা দখল করে বসেন তদানীন্তন সেনা প্রধান জেনারেল হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। সে সময় সারা দুনিয়াকে অবাক করে দিয়ে ঐ সামরিক ক্যুর প্রতি সমর্থন জানিয়ে বসেন দেশের প্রাচীনতম রাজনৈতিক সংগঠন আওয়ামী লীগ নেত্রী শেখ হাসিনা। এই অকল্পনীয় ঘটনা সম্ভবপর হয়েছিল হয়তো এই বিবেচনায় যে, সামরিক ক্যুর মাধ্যমে উৎখাত হওয়া ঐ নির্বাচিত সরকারের নেতৃত্বে ছিল নিয়মতান্ত্রিক রাজনীতিতে আওয়ামী লীগের প্রধান প্রতিপক্ষ বিএনপি। এর অর্থ এই যে, নিয়মতান্ত্রিক রাজনীতিতে আওয়ামী লীগের প্রধান প্রতিপক্ষ বিএনপিকে ক্ষমতাচ্যুত করতে সামরিক ক্যুর প্রতি সমর্থন দিতেও আওয়ামী নেতৃত্বের বিবেকে বাধেনি।

সংবাদপত্রের পাঠকদের স্মরণ থাকার কথা, এরপর শুরু হয় জেনালের এরশাদের দীর্ঘ স্বৈরশাসনের পালা। পাশাপাশি চলতে থাকে বিএনপির ও অন্যান্য দলের এরশাদ বিরোধী আন্দোলন। আওয়ামী লীগ নেত্রী শেখ হাসিনা প্রথম দিকে অনেক দিন এসব স্বৈরশাসন বিরোধী আন্দোলন থেকে দূরে সরে থাকলেও পরবর্তীকালে এক পর্যায়ে এরশাদ বিরোধী আন্দোলনে যোগ দেন। কিন্তু ততদিনে রাজনীতিতে অপেক্ষাকৃত নবাগতা বেগম খালেদা জিয়া স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনে একটানা নেতৃত্ব দিয়ে আপোষহীন নেত্রী হিসাবে অত্যন্ত জনপ্রিয় হয়ে ওঠেন, যার প্রমাণ পাওয়া যায় পরবর্তী নির্বাচনে। এ দিকে দেশের প্রধান দুই রাজনৈতিক দলই এরশাদ বিরোধী আন্দোলনে যোগদানের পর দেশে গণতান্ত্রিক শাসন ফিরিয়ে আনার লক্ষ্যে একটি নির্বাচন অনুষ্ঠানের প্রশ্নে একমত হয় এবং এই নির্বাচন যাতে অবাধ ও নিরপেক্ষ হয় সে লক্ষ্যে দুই প্রধান নেত্রী এ প্রশ্নেও একমত হন যে, ঐ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে দেশের সুপ্রীম কোর্টের প্রধান বিচারপতি শাহাবুদ্দিন আহমদের নেতৃত্বাধীন নির্দলীয় তত্ত¡াবধায়ক সরকারের অধীনে।

যেমনটা আশা করা গিয়েছিল, নির্বাচন অত্যন্ত সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হয়। নির্বাচন চলাকালে আওয়ামী লীগ নেত্রী শেখ হাসিনা সাংবাদিকদের সাথে আলাপচারিতাকালে এক পর্যায়ে বলেন, আমি সকল জেলার খবর নিয়েছি। নির্বাচন অত্যন্ত সুষ্ঠু হয়েছে। আপনারা লক্ষ্য রাখবেন, ভোটে হেরে গিয়ে কেউ যেন এর মধ্যে আবার কারচুপি আবিষ্কার না করে। ভোট গণনা শেষে যখন জানা গেল, আওয়ামী লীগ নয়, নির্বাচনে বিজয়ী হয়েছে বিএনপি, শেখ হাসিনা অবলীলাক্রমে বলে ফেললেন, নির্বাচনে সু² কারচুপি হয়েছে। কিন্তু সংশ্লিষ্ট কেউ তাঁর এ স্ববিরোধী অবাস্তব বক্তব্যে গুরুত্ব না দেয়ায় স্বাভাবিক নিয়ম মোতাবেক বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে নতুন সরকার গঠিত হলো এবং সংসদে বিরোধী দলের নেত্রী হলেন আওয়ামী লীগ নেত্রী শেখ হাসিনা। বেগম খালেদা জিয়ার প্রধান নেতৃত্বের মেয়াদ শেষে নতুন নির্বাচনের প্রশ্ন উঠলে প্রধানত: বিরোধী দলীয় নেত্রী শেখ হাসিনার দাবীর মুখে দেশের সকল জাতীয় নির্বাচন নির্দলীয় তত্ত¡াবধায়ক সরকারের অধীনে অনুষ্ঠিত হবে এই মর্মে সংবিধানে সংশোধন করে প্রস্তাব গৃহীত হয়।

বাংলাদেশের বিশেষ রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে এটাই যে ছিল গণতান্ত্রিক ব্যবস্থার জন্য সব চাইতে উপযোগী, তা বাস্তবে প্রমাণিত হয়। এ ব্যবস্থাধীনে দেশে বেশ কয়েকটি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় এবং তাতে দেশের দুই প্রধান দল পালাক্রমে পর পর নির্বাচিত হয়ে দেশ পরিচালনার সুযোগ লাভ করে। কিন্তু এই সুন্দর ব্যবস্থাও এক শ্রেণীর রাজনীতিকের অতিরিক্ত ক্ষমতাক্ষুধা পচিয়ে ফেলে। ফলে এক পর্যায়ে শেখ হাসিনার প্রধানমন্ত্রীত্বের আমলে নির্দলীয় তত্ত¡াবধায়ক সরকারের অধীনে জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠানের পরিবর্তে নির্বাচিত দলীয় সরকারের অধীনে জাতীয় নির্বাচনের পরিবর্তে দলীয় সরকারের অধীনে জাতীয় নির্বাচনের ঘোষণা দিলে দুই প্রধান দলের মধ্যকার অতীত সমঝোতার সুস্পষ্ট লংঘনের অভিযোগ এনে বিএনপি সে নির্বাচন বয়কটের ঘোষণা দেয়। দেশের দুই প্রধান দলের একটি (বিএনপি) নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দিলে সে নির্বাচন বাস্তবে হয়ে পড়ে নির্বাচনী প্রহসনে। জনগণও সে নির্বাচনে আগ্রহ হারিয়ে ফেলে। বিরোধী দল তো দূরের কথা, শাসক দলের অনেক নেতাকর্মীও সে নির্বাচনে ভোট দিতে ভোট কেন্দ্রে যাওয়ার গরজ হারিয়ে ফেলেন। কারণ তারা জানতেন, তারা ভোট দিতে ভোট কেন্দ্রে না গেলেও তাদের ভোট দানের ব্যবস্থা ঠিকই করা হবে দলের পক্ষ থেকে।

বাস্তবে হয়ও সেটাই। বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের বয়কটজনিত অনুপস্থিতির সুযোগে শাসক দলের অল্পসংখ্যক নেতাকর্মীই ভোট কেন্দ্রে উপস্থিত হয়ে তাদের ইচ্ছামত সরকারী দলের প্রার্থীদের ব্যালটপত্রে সীলমেরে তাদের বিপুল ভোটে বিজয়ী হওয়া নিশ্চিত করেন, যদিও ভোটদানের নির্ধারিত সময়ে অধিকাংশ ভোট কেন্দ্র ছিল ফাঁকা, জনশূণ্য। এভাবে ভোটারদের অনুপস্থিতিতে “বিপুল ভোটে শাসকদলের” বিজয়ের কারণে জনগণ এ নির্বাচনের নাম দেয় ভোটারবিহীন নির্বাচন। বর্তমানে যে সরকার দেশ শাসন করছে সে সরকার এই ভোটারবিহীন নির্বাচনেরই ফসল।

একটি ভোটারবিহীন নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে ক্ষমতা কব্জা করতে পারায় আওয়ামী লীগের যেন তেন প্রকারে ক্ষমতায় যাওয়ার লোভ যেন বেড়ে গেছে একটি বেশি মাত্রায়ই। তিন তিনটি অবাধ নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে বাংলাদেশের প্রধান মন্ত্রী নির্বাচিত হওয়া বেগম খালেদা জিয়ার সকল মনোনয়ন পত্র বাতিল ঘোষিত হওয়া ছাড়াও অসংখ্য বিএনপি প্রার্থীর মনোনয়নপত্র ইতোমধ্যেই বাতিল ঘোষিত হয়েছে। এতসব মনোনয়নপত্র বাতিলে আওয়ামী লীগে সরকারের কোন হাত ছিল না বলে আওয়ামী লীগ নেতা ওবায়দুল কাদের দাবী করলেও এবং এসব মনোনয়নপত্র বাতিলের জন্য দায়ী ইসি তথা নির্বাচন কমিশন এটা বলা হলেও এ কমিশন যে আওয়ামী সরকারের ইচ্ছাতেই গঠিত হয় এ সত্য অস্বীকার করা আর বাস্তবকে অস্বীকার করা একই কথা। কারণ এ ধরনের ইচ্ছামত নির্বাচন কর্তৃপক্ষ (ইসি) গঠনের আশায়ই তারা নির্দলীয় তত্ত¡াবধায়ক সরকারের অধীনে জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠানের পরিবর্তন নির্বাচিত দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনের ব্যবস্থা করেছেন ইচ্ছাকৃত ও সুপরিকল্পিতভাবে।

অতীতে দেশের অন্যতম প্রধান দল বিএনপির সাথে নির্দলীয় তত্ত¡াবধায়ক সরকারের অধীনে সকল জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠানের ব্যবস্থা করা হবে বলে বিএনপির সাথে আওয়ামী লীগ যে সমঝোতায় পৌঁছেছিল, সে সমঝোতা থেকে সরে গিয়ে নির্দলীয় তত্ত¡াবধায়ক সরকারের অধীনে সকল জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠানের পরিবর্তে যেদিন আওয়ামী লীগ নির্বাচিত দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন অনুষ্ঠানের সিদ্ধান্ত ঘোষণা দেয় সেই দিনই সুস্পষ্ট হয়ে উঠেছিল কোন অবাধ নির্বাচনে জয়ী হওয়ার ব্যাপারে আওয়ামী লীগ বিশ্বাস ও আশা হারিয়ে ফেলেছে। তাই অবাধ নিরপেক্ষ নির্বাচনের পরিবর্তেন দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন দিয়ে যে কোন মূল্যে নির্বাচনে জয়ী হয়ে পুনরায় ক্ষমতায় যাওয়া ছাড়া জনসমর্থনশূণ্য আওয়ামী লীগের ক্ষমতায় ফিরে যাওয়ার আর কোন ভরসা নেই। তাই বিরোধী দলের মনোনয়ন পত্র অবৈধ অন্যায় পন্থায় ব্যাপকভাবে বাতিল করে পুনরায় ক্ষমতায় যেতে উন্মত্ত হয়ে উঠেছে ভোটারবিহীন নির্বাচনে বিজয়ী ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। এর ফলে এমন এক নির্বাচনে আওয়ামী লীগ বিজয়ী হতে চায়, যে নির্বাচনে বিজয়ী হতে অবৈধ অন্যায় পন্থায় ছাড়া বিজয়ী হওয়ার অন্য কোন উপায় নেই।

ইনকিলাবের সম্পাদকীয় থেকে নেওয়া

print

LEAVE A REPLY